কাঁচা পাটকে নিত্যপ্রয়োজনীয় মালের অন্তর্ভুক্ত করার প্রতিবাদে মহকুমা শাসকের কাছে দাবিপত্র

কাঁচা পাটকে নিত্যপ্রয়োজনীয় মালের অন্তর্ভুক্ত করার প্রতিবাদে মহকুমা শাসকের কাছে দাবিপত্র

বালুরঘাট, ২৩ নভেম্বর— কাঁচা পাটকে নিত্যপ্রয়োজনীয় মালের অন্তর্ভুক্ত করার প্রতিবাদে মঙ্গলবার উত্তরবঙ্গ ক্ষুদ্র পাট ব্যবসায়ী সমিতির তরফে বালুরঘাট সদর মহকুমা শাসকের কাছে দাবিপত্র জমা দেওয়া হল। এদিন সংগঠনের বালুরঘাট ইউনিটের সম্পাদক কমলেন্দু ঘোষ জানান, বর্তমানে কেন্দ্রীয় সরকার পাটকে নিত্যপ্রয়োজনীয় মালের তালিকাভুক্ত করায় পাট ব্যবসায়ীরা সর্বোচ্চ ৩০০ কুইন্টাল পাট মজুত করতে পারে। এদিন মহকুমা শাসককে দাবি জানিয়ে সংগঠনের তরফে বলা হয়, ৩০০ কুইন্টাল নয়, ৫০০ কুইন্টাল মজুত করার অনুমতি দিতে হবে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, বর্তমানে পাটের উপর রাজ্য সরকার এক শতাংশ মার্কেটিং ফি-‌র টাকা কেটে নিচ্ছে। কিন্তু এরপরেও ফের মিল মালিকগুলি বাড়তি ১ শতাংশ টাকা কেটে নিচ্ছেন। যা নেবার কোনো নির্দেশ নেই। তাছাড়াও এই টাকা নেবার পরেও তাদের কোনো রকম রসিদ দেওয়া হচ্ছে না। পাশাপাশি, বর্তমান বাজারে যেখানে পাট কেজিপ্রতি ৭০ টাকা দরে বাজারে বিক্রি হচ্ছে, সেখানে সরকার সর্বোচ্চ ৬৫ টাকা দাম ধার্য্য করেছে। এরও প্রতিবাদ জানানো হয় এদিন। কমলেন্দু বাবু জানান, অবিলম্বে রাজ্য সরকার উত্তরবঙ্গ পাট ব্যবসায়ীদের দাবি না মানলে তারা আরো বড় ধরণের আন্দোলনে নামবে। প্রয়োজনে বালুরঘাট ব্লকের সমস্ত হাটগুলি বন্ধ করে দেবার হুশিয়ারি দেন এদিন। যদিও প্রশাসনের তরফে জানানো হয়, ব্যবসায়ীদের দেওয়া স্মারকলিপি তিনি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে দেবেন।

দক্ষিণ বাংলা