যুবক খুনের ঘটনার কয়েকঘন্টার মধ্যে সেই খুনের ঘটনায় এক অভিযুক্ত যুবকের অশোকগ্রামের দুমোঠা ফরিদপুরে রহস্য মৃত্যু একটি ঘটনায় গ্রেফতার ৭জন

যুবক খুনের ঘটনার কয়েকঘন্টার মধ্যে সেই খুনের ঘটনায় এক অভিযুক্ত যুবকের অশোকগ্রামের দুমোঠা ফরিদপুরে রহস্য মৃত্যু একটি ঘটনায় গ্রেফতার ৭জন

যুবক খুনের ঘটনার কয়েকঘন্টার মধ্যে সেই খুনের ঘটনায় এক অভিযুক্ত যুবকের অশোকগ্রামের দুমোঠা ফরিদপুরে রহস্য মৃত্যু একটি ঘটনায় গ্রেফতার ৭জন
রাজ চক্রবর্তী গঙ্গারামপুর ২৬জানুয়ারি দক্ষিণ দিনাজপুর-যুবক খুনের ঘটনার কয়েকঘন্টার মধ্যে সেই খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত যুবকের রহস্যজনক মৃতকে কেন্দ্রে বাপক শোরগোল পরেছে এলাকাজুড়ে। ওই যুবকের বাড়ির বেশ কিছুটা দুরে তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার হবার ঘটনায় মৃতের বাবা তাঁর ছেলেকে এলাকার দুষ্কৃতীকারিরা পিটিয়ে খুন করেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন। ঘটনাটি দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর থানার অশোকগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের দুমোঠা ফরিদপুরে ।জেলা বিজেপির সভাপতি অবশ্য মৃত নবারুন রায় তাঁদের দলের কর্মী ছিলেন বলে দাবি করে তৃণমূলের দুষ্কৃতীকারিরা এলাকায় পুলিশ পাহারা থাকার পরেও বহু বাড়িঘর ভাংচুর করার পরে, কিভাবে এই যুবককে পিটিয়ে খুন করল সেবিষয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। যদিও পাল্টা অভিযোগ করেছে শাসকদলের জেলা সভাপতি।পুলিশ অবশ্য জানিয়েছেন ,একটি খুনের ঘটনায় ৭জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ রিমাইন্ড চেয়ে মহুকুমা আদালতে পাঠানো হয়েছে অভিযুক্তদের।এলাকায় পুলিশ পিকেট বসানো হয়েছে।ঘটনায় ব্যপক শোরগোল সহ টানটান উত্তেজনা রয়েছে।
মৃতের পরিবার সুত্রে যানা গিয়েছে সেই ঘটনার বেশ কয়েকঘন্টা করে বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে মঙ্গলবার রাতে মঞ্জারুল ইসলাম খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত এই এলাকার বাসিন্দা নিবারন রায়(৩২) নামে যুবকের রহস্য জনক মৃত্যু হয়।নিবারনের দেহের সারা শরীরে মাটি লেগে রয়েছে, তাঁর দেহে। বিভিন্ন জায়গায় চিহ্ন রয়েছে তাঁর শরীরে বলে পরিবারের লোকজনদের দাবি।যদিও পুলিশ প্রশাসন করছে কিভাবে তাঁর মৃত্যু হয়েছে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট হাতে পেলেই সব পরিস্কার হয়ে যাবে।
গত সোমবার রাতে মটোর বাইক নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে গঙ্গারামপুর থানার অশোকগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের সিমান্তববর্তি এলাকার দোমুঠা ফরিদপুর মধ্যপাড়া এলাকায় মস্তারুল ইসলাম (২৭)বছর এক যুবককে পিটিয়ে খুন করার অভিযোগ ওঠে বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে। অভিযোগ ওঠে পুরনো আর্থিক ঝামেলার জেরেই এমন ঘটনা হয়ে থাকতে পারে।সেই ঘটনার সঙ্গে অন্য বিষয়ও জড়িয়ে থাকতে পারে বলে সুরে যানা গিয়েছে।পুলিশ সেই খুনের ঘটনায় ১১জনের নামে মৃতের স্ত্রী থানায় খুনের লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।ঘটনার পরে গঙ্গারামপুর থানা থেকে পুলিশ গিয়ে পরিস্থতি আয়ত্বে আনতে এলাকায় বিরাট আকারে পুলিশ পিকেট বসানো হয়। যদিও মৃত নিবারন রায়ের বাবা গবান রায় অভিযোগ করে বলেন এলাকায় পুলিশ পাহারা থাকা সত্ত্বেও আমাদের বহু বাড়িঘর ভাংচুর করেছে সেখানকার দুষ্কৃতীকারিরা। ছেলেকে ওরা জোর করে নিয়ে গিয়ে খুন করেছে। আর ওরাই বলছে ছেলে নাকি ফাঁসি নিয়েই।থানায় খুনের অভিযোগ করা হবে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির দাবি জানাই।
মৃত নিবারন রায়ের এক আত্মীয় এলাকার দুষ্কৃতীকারিরাই এমনকান্ড করেছে বলে অভিযোগ করেছেন।তিনিও দোষিদের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।
যদিও মৃতের বাবা গবরধন রায় মা বাবলি রায় ভাই ও তাঁর স্ত্রী ছেলে নিয়ে কৃষি কাজ করে তাঁরা সংসার পরিচালনা করে থাকেন।নিবারন বিয়ে করলেও তাঁর স্ত্রী বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই স্বামীর সঙ্গে থাকেন না বলে পরিবার সূত্রে খবর।
বিজেপি জেলা সভাপতি সরুপ চৌধুরী অবশ্য মৃত নবারুন রায় তাঁদের দলের কর্মী ছিটোন বলে দাবি করে তৃণমূলের দুষ্কৃতীকারিরা এলাকায় পুলিশ পাহারা থাকার পরেও বহু বাড়িঘর ভাংচুর করার পরে তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তিনি আরো অভিযোগ করেন, এলাকায় পুলিশ পাহারা থাকা সত্ত্বেও কিভাবে ওই যুবককে পিটিয়ে খুন করল তৃণমূলের দুষ্কৃতীকারিরা সেবিষয়ে তিনি প্রশ্ন তুলেছেন।তিনি অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।
যদিও জেলা তৃণমূলের সভাপতি উজ্জ্বল বসাক পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, মৃত্যু নিয়ে আমাদের দল রাজনীতি করে। না এটা বিজেপি করে। প্রশাসন রয়েছে তারাই বিষয়টি দেখছেন।
পুলিশের তরফে মারুল ইসলাম খুনের ঘটনায় দায়ের করে গঙ্গারামপুর আদালতে হয়েছে ৭ দিনের পুলিশ রিমাইন্ড চেয়ে।
ধৃতদের মধ্যে দেবাশিষ রায় ,স্বপন রায় মদন সরকার, জয়দেব রায় পরিমল রায়, বিপ্লব চন্দ্র রায়, সকলের বাড়ি দুমোঠা ফরিদপুরে।
অভিযুক্ত একজন আদালতে যাবার পথে জানিয়েছেন, ঘটনায় আমি কোন ভাবেই নয়। আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।
পুলিশ জানিয়েছেন একটি খুনের ঘটনায় এই যুবক কিভাবে মৃত্যু মৃতের দেহ উদ্ধার করে ময়না পাঠানো হয়েছে। এলাকায় পুলিশ পিকেট বসানো হয়েছে।
দুদিনে একই এলাকায় ঘটনায় ব্যপক শোরগোল টানটান উত্তেজনা রয়েছে।

দক্ষিণ বাংলা