বাড়িতে না থাকার সুযোগ নিয়ে একই রাতে দুটি বাড়িতে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনায় তিব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মালদহের বামনগোলা থানার পাকুয়াহাট এলাকায়

বাড়িতে না থাকার সুযোগ নিয়ে একই রাতে দুটি বাড়িতে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনায় তিব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মালদহের বামনগোলা থানার পাকুয়াহাট এলাকায়

বামনগোলা,১৪ফেব্রুয়ারি: বাড়িতে না থাকার সুযোগ নিয়ে একই রাতে দুটি বাড়িতে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনায় তিব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মালদহের বামনগোলা থানার পাকুয়াহাট এলাকায়।রবিবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে মালদহের মালদহের পাকুয়াহাট পঞ্চায়েতের টিয়াটিকা এলাকায়। ঘটনার খবর পেয়ে সোমবার সকালে ঘটনস্থলে গিয়ে চুরির তদন্ত শুরু করেছে বামনগোলা থানার পাকুয়াহাট ফাঁড়ির পুলিশ। তবে এক মাসের মধ্যে ওই এলাকায় বারংবার চুরির ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে?

জানা যায়, টিয়াকাটি গ্রামের শিবনাথ বিশ্বাসের গোটা পরিবার রবিবার এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাই। অপর দিকে মালতি পণ্ডিত, তিনিও ওই দিনই একটি শ্রাদ্ধ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যান। এদিন সকালে দুই বাড়ির সদস্যরা প্রতিবেশীদের ফোনে খবর পেয়ে বাড়িতে ছুটে এসে দেখেন বাড়ির সদর দরজার তালা ভাঙা অবস্থায় পরে রয়েছে। বাড়ির সমস্ত জিনিস পত্র লন্ডভন্ড। চুরির পর চোরেরা দুই বাড়িতে তান্ডপ চালায়। দুই পরিবারের বাড়ি থেকে বেশ কিছু সোনার অলংকার সহ প্রায় ২০হাজার টাকা নিয়ে চম্পট দেয় বলে অভিযোগ। গোটা ঘটনা নিয়ে দুই বাড়ির গৃহ কর্তারা পাকুয়াহাট ফাঁড়িতে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তবে এদিনের চুরির ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে এলাকা জুড়ে।

উত্তর বাংলা