মাধ্যমিকের টুকলি রোধে কড়া প্রহরা দেওয়ায় রাতের অন্ধকারে ভাঙচুর সরকারী স্কুল

মাধ্যমিকের টুকলি রোধে কড়া প্রহরা দেওয়ায় রাতের অন্ধকারে ভাঙচুর সরকারী স্কুল

বালুরঘাট,  ১৬ মার্চ —– মাধ্যমিকের টুকলি রোধে কড়া প্রহরা দেওয়ায় রাতের অন্ধকারে ভাঙচুর সরকারী স্কুল। তুমুল উত্তেজনা বালুরঘাটে।  বুধবার এ ঘটনাকে ঘিরে তুমুল উত্তেজনা ছড়ায় বালুরঘাটের বঙ্গি এলাকায়। ভেঙে তছনছ করা হয়েছে বালুরঘাট জয়চাঁদ লাল প্রগতি বিদ্যাচক্র উচ্চ বিদ্যালয়ের বেশকিছু ঘরে। গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে ভূগোলের প্রাকটিক্যাল ল্যাব এর সরঞ্জাম ও গ্রন্থাগার।ঘরের ফ্যান  গুলোকেও বেঁকিয়ে দেওয়া দুস্কৃতিদের তরফে। ঘটনা জানিয়ে বালুরঘাট থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন স্কুল কতৃপক্ষ। মাধ্যমিক পরীক্ষার শেষের রাতে এমন ঘটনাকে ঘিরে রীতিমতো আলোড়ন পড়েছে গোটা বালুরঘাট শহরে।

জানা যায়, এবারের মাধ্যমিক পরীক্ষায় বালুরঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রদের পরীক্ষার   সিট পড়েছিল জয়চাঁদ লাল প্রগতি বিদ্যাচক্র স্কুলে। যেখানেই অত্যন্ত কড়া প্রহরার মধ্যদিয়ে সুষ্ঠু ভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন করে ওই স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা। কড়া প্রহরা ও  টুকলি তে বাধা দেওয়ায় পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে দুএকটি ছাত্রের সাথে বচসাও হয় ওই স্কুলের শিক্ষকদের বলে সুত্রের খবর। শুধু তাই নয়, ছাত্রদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়েছে শিক্ষকদের, বলেও খবর। আর যা নিয়েই  বালুরঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ডেকে জানিয়েছিলেন জে এল পি স্কুলের প্রধান শিক্ষক। কিন্তু তাতেও কাজ হয়নি। গতকাল রাতে স্কুলের ভূগোলের  প্রাকটিক্যাল ক্লাস রুম কার্যত ধ্বংসস্তূপ করে দেওয়া হয়েছে। এই বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হচ্ছে বালুরঘাট থানাতেও।  লিখিতভাবে জানানো হয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষকেও। এদিন এই ঘটনা সামনে আসায় রীতিমতো  হতবাক হয়েছেন দুই স্কুলের প্রধান শিক্ষক।

জে এল পি বিদ্যাচক্রের প্রধান শিক্ষক পুলক বসাক বলেন, বেশ কয়েক হাজার টাকার স্কুলের সম্পত্তি ভেঙে দেওয়া হয়েছে রাতের অন্ধকারে। মাধ্যমিক পরীক্ষায় টুকলি রোধে কড়া প্রহরা দেওয়াতে দু চারটি ঘটনাও ঘটেছিল। কিন্তু এই ঘটনা কারা করেছে তা তদন্ত করে বের করতেই তারা পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন।

বালুরঘাট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সৃজিত সাহা বলেন, এমন বিষয় তার জানা নেই। বিষয়টি জানবার পরেই এব্যাপারে মন্তব্য করতে পারবেন।

দক্ষিণ বাংলা